Home / বিশ্ব / মমতা-রাহুল জোড়া ফলায় বিদ্ধ মোদী

মমতা-রাহুল জোড়া ফলায় বিদ্ধ মোদী

অর্থ সংকট নিয়ে আক্রমণাত্মক তৃণমূল নেত্রী৷ দুর্নীতি নিয়ে মারমুখী কংগ্রেস সহ-সভাপতিও৷ মঙ্গলবার দিল্লিতে বিরোধী জোটের জোড়া আক্রমণ – মোদীজি ৫০ দিন পার হতে চললো, এবার টাকা তোলার ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রত্যাহার করুন বা পদত্যাগ করুন!

আচমকা বড় অঙ্কের নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বুক বাজিয়ে বলেছিলেন, ৫০ দিন সময় দিন, তার মধ্যেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে৷ আর যদি না হয়, মোদী বলেছিলেন, দেশের যে কোনো রাস্তার মোড়ে দাঁড় করিয়ে জনতাই তাঁকে শাস্তি দেবে!‌ সেই সময়সীমা শেষ হয়ে যাচ্ছে, কিন্তু নোট বাতিল জনিত দুরবস্থা শুধরোবার কোনো সম্ভাবনাই নেই৷ বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী, রাষ্ট্রীয় জনতা দল নেতা এবং মোদী-বিরোধী জোটের অন্যতম মুখ, স্বভাবরসিক লালুপ্রসাদ যাদব মঙ্গলবারই বললেন, তা হলে মোদীজি এবার ঠিক করে ফেলুন, তিনি কোন রাস্তার মোড়ে দাঁড়াবেন!‌ কারণ, দেশের মানুষ তাঁকে শাস্তি দিতে চায়৷

তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা ব্যানার্জি অবশ্য রহস্য-রসিকতার ধার ধারেননি৷ মঙ্গলবার রাজধানী দিল্লির সাংবাদিক সম্মেলনে কংগ্রেসের সহ সভাপতি রাহুল গান্ধীকে পাশে বসিয়ে তিনি দাবি করেন, ৩০ ডিসেম্বরের পর হয় মোদী ব্যাংক থেকে টাকা তোলার ওপর আরোপ করা নিয়ন্ত্রণ প্রত্যাহার করুন, অথবা পদত্যাগ করুন৷ মমতা স্পষ্টভাষায় বলেছেন, সাধারণ মানুষের, চাকুরিজীবীদের, পেনশনভোগীদের, ছোট ব্যবসায়ী, দোকানদার, শ্রমিক, কৃষক, সবার চূড়ান্ত অসুবিধে হচ্ছে৷ নিজের টাকা ব্যাংক থেকে প্রয়োজনমত তোলা যাচ্ছে না৷ অথচ এই নিয়ে কোনো কথা বলতে গেলেই মোদী সরকার হুমকি দিচ্ছে ‘গব্বর সিং’ এসে যাবে!‌ সাংবাদিকদের মধ্যে হাসির হুল্লোড় ওঠে মমতার কটাক্ষে৷ তৃণমূল নেত্রীর স্পষ্টই ইঙ্গিত ছিল বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির ওপর বিভিন্ন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নজরদারির দিকে৷